Home / বাংলাদেশ / ‘এমপির শাস্তি চাইছি, মৃত্যু চাই নাই’

‘এমপির শাস্তি চাইছি, মৃত্যু চাই নাই’

গাইবান্ধা-১ (সুন্দরগঞ্জ) আসনের সংসদ সদস্য মঞ্জুরুল ইসলাম লিটন দুর্বৃত্তদের গুলিতে নিহতের ঘটনায় ব্যথিত হয়েছে শিশু সৌরভের পরিবারও।

আজ রবিবার সন্ধ্যা সাড়ে ৭ টার দিকে প্রতিক্রিয়া জানতে চাইলে লিটনের পরিবারের প্রতি সমবেদনা জানিয়েছেন সৌরভের বাবা-মা।

গত বছরের ২ অক্টোবর ভোরে সংসদ সদস্য লিটনের ছোড়া গুলিতে দুই পায়ে গুলিবিদ্ধ হয় শিশু শাহাদত হোসেন সৌরভ (১০)। সৌরভ স্থানীয় গোপালচরণ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় থেকে এবার সমাপনী পরীক্ষায় অংশ নিয়ে জিপিএ ২.১৭ পেয়ে উত্তীর্ণ হয়েছে।

সৌরভের মা সেলিনা বেগম বলেন, ‘২ অক্টোবরের ঘটনায় আমরা অনেক কষ্ট পেয়েছিলাম। ওই কষ্ট আজও ভুলিনি। কোনো দিন ভোলা সম্ভব না। কারণ দীর্ঘদিন পরেও সৌরভ পুরোপুরি স্বাভাবিক জীবনে ফিরতে পারেনি। আগের মতো ছোটাছুটি, খেলাধুলা করতে পারে না। বেশি হাঁটাহাটি করলে বা দৌঁড়ালে পায়ে ব্যথা অনুভব করে। রাতে ঘুমাতে পারে না। তার পরেও সংসদ সদস্য মঞ্জুরুল ইসলাম লিটনের অস্বাভাবিক মৃত্যুর বিষয়ে আমরা শোকাহত, মর্মাহত।’

সৌরভের বাবা সাজু মিয়া বলেন, ‘একজন মানুষকে তার বাড়িতে ঢুকে এভাবে গুলি করে হত্যার বিষয়টি আমাদের হতবাক করেছে। এভাবে একজন সংসদ সদস্যের চলে যাওয়া মেনে নেওয়া যায় না। আমার ছেলের ওপর অন্যায় করা হয়েছে, আমি তার প্রতিবাদ করেছি, বিচার দাবি করেছি, অন্যায়কারীর শাস্তি দাবী করেছি। তেমনিভাবে এমপি লিটনকে হত্যাকারীরের গ্রেপ্তার করে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি করছি।’
তিনি বলেন, ‘২ অক্টোবরের সেই ঘটনার পর এমপি লিটন অনুতপ্ত ছিলেন। তিনি বিষয়টি নিয়ে একাধিকবার আমার সঙ্গে কথা বলেছেন। তার সঙ্গে আমার পরিবারের সু-সম্পর্ক গড়ে উঠেছিল। ভবিষ্যতে আমার ছেলের ব্যাপারে তিনি দায়িত্বশীল ভূমিকা রাখতেন।’

শিশু শাহাদত হোসেন সৌরভ বলেন, ‘ আমার দুই পায়েই গুলিবিদ্ধ হয়েছিল। সেই ভয় আর কষ্ট আমার মন থেকে আজও যায়নি। তার ওপর এমপি লিটনকে গুলি করে হত্যার বিষয়টি আমার মনে নতুন করে ভীতির সঞ্চার করছে।’

উল্লেখ্য, সুন্দরগঞ্জ উপজেলার দহবন্দ ইউনিয়নের গোপালচরণ এলাকায় ২ অক্টোবর ভোরে এমপি লিটনের ছোড়া পিস্তুলের গুলিতে মারাত্মকভাবে আহত হয় শাহাদত হোসেন সৌরভ। তাকে রংপুর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়। সেখানে শিশু সার্জারি বিভাগে ২৪ দিন চিকিৎসা নিয়ে গত ২৬ অক্টোবর দুপুরে সে বাড়ি ফেরে। এ ঘটনায় সৌরভের বাবা বাদী হয়ে ৩ অক্টোবর এমপি লিটনকে আসামি করে সুন্দরগঞ্জ থানায় মামলা করেন। ওই মামলায় ২৪ দিন কারাভোগ করে জামিনে মুক্ত হন এমপি লিটন।

About Abul Fazal Azad

Check Also

358

উত্তরায় ভয়ংকর কিশোর বখাটেরা

রাজধানীর উত্তরায় উঠতি কিশোর-তরুণরা মিলে গড়ে তুলেছে ভয়ংকর বখাটে দল। এলাকায় মোটরসাইকেল প্রতিযোগিতা, গান-বাজনা, খেলার …

352

ঢাকার ভয়ঙ্কর ফাঁদগুলো জেনে নিন

কর্মসংস্থানের সন্ধানে ঢাকায় আসছে মানুষ। তাই দিন যত যাচ্ছে মানুষের সংখ্যাও তেমন বাড়ছে। আর এসব …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *