Home / আন্তর্জাতিক / বোরখা খোলায় চাকরি ছেড়ে দিলেন স্কুলশিক্ষিকা

বোরখা খোলায় চাকরি ছেড়ে দিলেন স্কুলশিক্ষিকা

ভারতের মুম্বাইয়ের সুবুরবান জেলার কুরলা এলাকার একটি স্কুলে দুই বছর ধরে শিক্ষকতা করতেন শাবিনা খান নাজনীন। গত বুধবার ওই স্কুলেই একটি অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনার শিকার হন তিনি।

ওই স্কুলে নতুন যোগদান করা এক জ্যেষ্ঠ শিক্ষক তাঁর ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত হানার অভিযোগ এনে ২৫ বছর বয়সী ওই নারীকে বোরখা ও হিজাব খুলতে বাধ্য করেন। আর এর পরই ওই জ্যেষ্ঠ সহকর্মীর বিরুদ্ধে ‘ধর্মীয় অনুভূতিতে’ আঘাতের অভিযোগ এনে ওই শিক্ষিকা পদত্যাগ করেন।

ভারতের সংবাদমাধ্যম পিটিআইর কাছে শনিবার এ সম্পর্কে বলেন শাবিনা। তিনি জানান, গত বুধবার ক্লাস চলাকালেই ওই সহকর্মী তাঁকে বোরখা ও হিজাব খুলতে বাধ্য করেন। এরপর শুক্রবার তিনি ওই স্কুলে পদত্যাগপত্র জমা দিয়ে আসেন। পদত্যাগপত্রে তিনি উল্লেখ করেন, ‘তাঁর ধর্মীয় অনুভূতির কাছে আর কোনো কিছুই তুলনাযোগ্য নয়।’

তবে ওই স্কুল কর্তৃপক্ষ এখনো ওই শিক্ষিকার পদত্যাগপত্র গ্রহণ করেনি। তাঁরা চলতি সপ্তাহে এক বৈঠকের পর এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেবেন বলে ওই শিক্ষিকাকে জানিয়েছেন।

পিটিআইর কাছে গত বুধবারের ঘটনার বর্ণনা দিয়ে শাবিনা বলেন, ‘বেশ কয়েক দিন ধরেই বিদ্যালয়ে বোরখা ও হিজাব পরে আসার কারণে নানা ধরনের নির্যাতনের শিকার হচ্ছিলাম। এ বিষয়ে বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষিকার কাছে বারবার অনুরোধ করেছিলাম, যাতে আমার ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত না দেওয়া হয়। কিন্তু কেউ আমার কথা শোনেননি। আর গত বুধবার এ বিষয় নিয়েই এক জ্যেষ্ঠ শিক্ষক আমাকে অসম্মান করেন। এরপরই আমি ওই বিদ্যালয় থেকে পদত্যাগের সিদ্ধান্ত নিই।’

শাবিনা নাজনীন আরো জানান, তিনি ওই স্কুলে তিন বছর ধরে তথ্য-যোগাযোগপ্রযুক্তি বিষয়ে পড়াতেন। তিনি জানান, গত বছর ওই স্কুলের অনেক মুসলিম শিক্ষিকা বোরখা ও হিজাব ত্যাগ করেছে। কিন্তু তিনি কোনোক্রমেই ধর্মীয় পোশাক পরিবর্তনে রাজি ছিলেন না।

About Abul Fazal Azad

Check Also

196

জাকির নায়েকের সম্পত্তির মূল্য ১০০ কোটি!‌

ভারতে কমপক্ষে ৩৭টি সম্পত্তির মালিক বিতর্কিত ইসলামী ধর্ম প্রচারক জাকির নায়েক। কেন্দ্রীয় গোয়েন্দা সংস্থা এনআইএ …

144

ছেলের বিয়ের আসরেই পুত্রবধূর ঠোঁটে চুম্বন শ্বশুরের!

অতিথিদের সমাগমে তুমুল হইচই বিয়েবাড়ি জুড়ে। চারিদিকে তখন নব দম্পতির সাংসারিক সুখের মঙ্গলকামনায় রত সবাই। …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *